শাহবাগে প্রতিবাদী আয়োজন “গণতন্ত্র মুক্তি পাক” আগামীকাল

প্রখ্যাত আলোকচিত্রী ও শিক্ষক শহিদুল আলম, ছাত্রনেতা মারুফ-আশাফসহ নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে এখনো মুক্তি না পাওয়া সকল শিক্ষার্থীদের মুক্তি, কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়কের আন্দোলনকারীদের উপর হামলার বিচার ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে আগামীকাল রবিবার, বিকাল ৪টায় শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে “প্রকৃত স্বাধীনতার দাবিতে নাগরিকবৃন্দের” উদ্যোগে “গণতন্ত্র মুক্তি পাক” শিরোনামে একটি প্রতিবাদী সমাবেশ, গান, নাটক, পারফরম্যান্স আর্ট, গানের মিছিল ও চিত্রাংকনের আয়োজন করা হয়েছে। এই প্রতিবাদী আয়োজনে উপস্থিত থাকবেন তেল, গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, নৃবিজ্ঞানী ও লেখক অধ্যাপক রেহনুমা আহমেদ, অধ্যাপক তানজীমউদ্দীন খান, অধ্যাপক ফাহমিদুল হক, অধ্যাপক সাইদ ফেরদৌসসহ বিভিন্ন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষকবৃন্দ, শিল্পী অমল আকাশ, বীথি ঘোষসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠক ও সংস্কৃতি কর্মীবৃন্দ, বিভিন্ন প্রগতিশীল রাজনৈতিক দলের নেতা ও কর্মীবৃন্দ, বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতা ও কর্মীবৃন্দসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দ, সাংবাদিক, কবি, সাহিত্যিক, আইনজীবী, আলোকচিত্রীসহ বিভিন্ন স্তরের পেশাজীবী ও প্রতিবাদী জনগণ। প্রতিবাদী এই আয়োজনটি বিকাল ৪টায় শুরু হয়ে শেষে প্রতিবাদ চলাকালীন সময়ে শিল্পীদের আঁকা প্রতিবাদী চিত্রাংকনের একটি সংক্ষিপ্ত প্রদর্শনী ও প্রতিবাদী গানের মিছিলের মধ্য দিয়ে সন্ধ্যা ৭টায় শেষ হবে।

স্বাধীনতার এত বছর পর এদেশে আজ এমন অবস্থা যেন ক্ষমতাকে প্রশ্ন করা নিষেধসমালোচনা করা নিষেধসত্য বলা নিষেধ। পরাধীন দেশের নাগরিকের মতোই আমাদের মুখে চেপে ধরা হয়েছে। জনগণের বিপরীতে স্বাধীনতা ভোগ করছে মূলত ব্যাংক ডাকাতটাকা পাচারকারীগুন্ডা আর “হেলমেটধারীরা”। সর্বশেষ কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনকারীদের উপর চলল পুলিশ ও সরকারী দলের সন্ত্রাসীদের বর্বর সহিংস হামলা হয়রানিমূলক অযৌক্তিক মামলায় ঝাঁকে ঝাঁকে শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তার করা হল। অথচ কোন হামলাকারীকে গ্রেফতার করা হল না। আন্দোলনকারীদের উপর হামলার সংবাদ নিতে গিয়ে রক্তাক্ত হল সাংবাদিকেরাও। আর ভীষণ নির্ভীকভাবে যিনি সারা বিশ্বের কাছে আন্দোলনকারীদের উপর হামলার খবরগুলো নিষ্ঠার সাথে তুলে ধরেছিলেন সেই প্রখ্যাত আলোকচিত্রীশিক্ষক ও সমাজকর্মী ড. শহিদুল আলমকে রাতের অন্ধকারে তুলে নিয়ে যাওয়া হল এরপর “কল্পনাপ্রসূত মিথ্যা তথ্য” প্রচারের অভিযোগে দেখানো হল গ্রেফতার! তার জামিনের আবেদনটিই শোনা হল না এখন পর্যন্ত! সারা বিশ্বজুড়ে চলছে শহিদুল আলমকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ। তবু শহিদুলের মুক্তি নেই! এই যে গণতন্ত্রের মুখ চেপে ধরাএই যে পরাধীন অবস্থা, এরই প্রতিবাদে এই আয়োজন।

রাষ্ট্রের আয়োজনে অগণতান্ত্রিক আচরণের বিরুদ্ধে আয়োজিত এই আয়োজনের সাথে সংহতি প্রকাশ করছে মুক্তিফোরাম।

Facebook Comments
Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *