আওয়ামী লীগের প্রোপাগান্ডা যেন ফরাসি রানীর উদাসীনতা

আওয়ামী লীগের প্রপাগান্ডা দলের তৈরি, বাংলাদেশে কোন ফকির মিস্কিন নাই কন্সেপ্টে একটা ভিডিও দেখলাম। যে ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটা গ্রামের মানুষ একটা লোককে দৌড় দিয়েছে , যেই লোকটা ফকির মিস্কিনের খোজে ঐ গ্রামে গিয়েছিল।

গ্রামের লোক চেতেছে কারন বাংলাদেশে এখন কোন ফকির মিস্কিন নাই। এবং তাদেরকে ফকির মিস্কিন ডাকাতে গ্রামের মানুষ অপমানিত বোধ করেছে। (কমেন্টে লিঙ্ক)।

ভিডিও আমাকে ফ্রান্সের রানি মার‍্য এন্টিওনেটের ওরা কেক খায়না কেন, উক্তির থেকেও জঘন্য মনে হয়েছে।

আজকে প্রতি বছর, রোজার সময়ে হাজার মানুষ একটা জাকাতের শাড়ি এবং ৫০ টাকার জন্যে জরো হয় তখন স্টাম্পিড হয়ে মারা যায়।
এই বছরে চট্টগ্রামের সাতকানিয়াতে কেএসআরমের জাকাতের শাড়ি দেয়ার সময়ে পদদলিত হয়ে মারা গ্যাছে, ১০ জন।
এরা ফকির মিস্কিন না, এরা গুজব।

আমি বিগত ছয়ত মাসে, অন্তত চারটা পত্রিকার লিঙ্ক পেয়েছি, যারা না খেয়ে মারা গ্যাছে ।

আমি বিগত এক বছরে, বেশ কয়েক জন যুবকের আত্মহত্যার খবর জানি, যারা পড়াশোনা শেষ করে, চাকুরী নে পেয়ে ফামিলির সাথে বিরোধে মানসিক যন্ত্রণা সইতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে।
এই ধরনের একটা ঘটনায় একজন যুবক তার বাবা মাকে হত্যা করেছে, সাভারে কয়েক মাস এগে। এই যুবককেও আমি ফকির মিস্কিন বলবো না।

রিয়ালিটি হচ্ছে, বাংলাদেশের মোট কৃষি উৎপাদনকে মোট কৃষকের সংখ্যা দিয়ে ভাগ করলে, মাসিক গড় আসে ৭০০ টাকার নীচে। এই জনগোষ্ঠী কিভাবে কি খেয়ে গ্রামে বেচে আছে আমরা জানিনা। এইটা একটা রহস্য।

কোন গ্রামে যদি বন্যা হয়, বা সাইকলন হয় তবে পঙ্গপালের মোট এক কাপড়ে বাচ্চা কোলে হাজার হাজার মানুষ নেমে আসে। তাদের চাহারায় কোন অনুভুতি নাই।দুর্বল হাড় জিরজিরে। এরাই সেই জনগোষ্ঠী যাদের মাসিক গড় আয়, ৭০০ টাকা।এরা ফকির মিস্কি না। এদেরকে কেউ যদি ফকির মিস্কিন ডাকে, এরা সেই লোককে দউরানি দেবে।

বিশ্বের সব চেয়ে কম প্রোটিন খায় যে জনগোষ্ঠী, যাদের বিগত ৫ বছরে সরকারী হিসেবেই এভারেজ ক্যালোরি কঞ্জাম্পশান কমেছে এরা কেউ ফকির মিস্কিন না।

যে দেশে এখনো গ্রামাঞ্ছলে শতকরা ৫০% শিশু খর্বকায় , যে দেশে ভারতের মত দেশ থেকে, ৫০% কম দুধ পান করে বাচ্চারা, সেই দেশে কোন ফকির মিস্কিন নাই।
গুজব।

আজকে বাংলাদেশের শাসক শ্রেণী হার মানিয়েছে হিরক রাজার দেশ থেকেও বেশী। তারা এক অলিক উন্নয়নের গল্পে, মিডিয়া দিয়ে প্রপাগান্ডা দিয়ে, ভিডিও বানিয়ে আমাদের উন্নয়নের একটা মরীচিকা তৈরি করে রেখেছে।

জাকাতের শাড়ি নিতে গিয়ে লাস হওয়া সেই নাম হীন মানুষ এবং তাদের পরিবার জানে জানে, দেশ থেকে ফকির মিস্কিন নিঃশেষ হওয়ার তাদের এই গল্প কি কদর্য, কি অশ্লীল।

এই ভয়ংকর দুরাচারের আমল শেষ হলে, ইতিহাসে রয়ে যাবে, শেখ হাসিনের এই শাসনামলে এই দেশের মানুষকে উন্নয়ন শোধনে কিভাবে ধর্ষণ করে, সেইটা নিয়ে পরিহাস করা হয়েছে তাদের বানানো গল্প, সিনেমা এবং এডভারটাজমেন্ট ক্যাম্পেইনে ।

লেখকঃ জিয়া হাসান

Facebook Comments
Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *