নতুন সড়ক পরিবহন আইন আন্দোলন দমনের জন্যে আইওয়াশ

বারবার কিশোরবিদ্রোহ দমন করবার জন্যে পূর্বের মতন আইনের মূলা ঝুলানো হচ্ছে। কিন্তু সোমবার যে সড়ক পরিবহন আইনটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রীসভায় উঠানো হবে, যেটি পাস হলে নাকি সড়কের সমস্যা কেটে যাবে‌‌‌ বলে মন্ত্রী সাহেব বলেছেন, সেটি আসলে কেবল আইওয়াশ ছাড়া কিছুই না।  তার আসল চেহারা কেমন একটু দেখে নেই আসেন। আইনী ঘোরপ্যাঁচের কথার সহজ বাংলা অর্থ দেখুন ব্র্যাকেটে।

১) কেউ যদি গাড়ি চালিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নরহত্যা করে, তাহলে ৩০২ ধারা অনুযায়ী শাস্তি দেওয়া হবে। (তারমানে বেপরোয়া বাস গাড়ি চালিয়েও খুব অল্প শাস্তিতে পার পাওয়া যাবে এটা বলে দিয়ে যে এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ছিল না!)

২) আর মৃত্যু নয়, এমন ঘটনায় ৩০৪ ধারা অনুযায়ী সাজা দেওয়া হবে। এবং শুধু দুর্ঘটনা হলে সর্বোচ্চ তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হবে। (তার মানে বেপরোয়া বাসচালনায় দুর্ঘটনা হলে মাত্র তিন বছর!) 

৪) প্রস্তাবিত আইনে গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করা যাবে না। ( কানে ব্লু টুথ হেডফোন ইউজ হবে তাইতো?)

৫) ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারবেন না।  (এতদিন ধরে এটা আইনে ছিল না?)

৬) ফিটনেসবিহীন গাড়ি চালালে মাত্র এক বছর কারাদণ্ড বা মাত্র এক লাখ টাকা জরিমানা গুনতে হবে।  (ফাইজলামি করতে আসছেন?)

৭) আর সড়কে দুটি গাড়ি যদি পাল্লা দিয়ে (রেসিং) চালানোর সময় দুর্ঘটনা ঘটে, সে ক্ষেত্রে তিন বছরের কারাদণ্ড অথবা ২৫ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। (ফাইলামি এগেইন? এক লাখ টাকা জরিমানার বদলে যদি ১ বছরের কারাদন্ড হয় তাইলে ২৫ লাখ টাকার বদলে তো ২৫ বছরের কারদন্ড হওয়ার কথা? তাই নয় কি? তার মানে রেসিং কইরা রাজীবের কাটা হায় পয়দা করলে সাজা মাত্র তিন বছর!   থুঃ! )

আবার এক্সট্রা মজা নিতে বাসে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের সংরক্ষিত আসনে কেউ বসলে বা তাদের না বসতে দিলে এক মাসের কারাদণ্ড অথবা পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করার বিধান রাখা হয়েছে।  লাইসেন্সই চেক কইরা সারতে পারেন না, আবার সংরক্ষিত আসন চেক করবেন?

আইওয়াশ মারান?

লেখকঃ মাহতাব উদ্দীন আহমেদ

Facebook Comments
Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *