দনিয়া কলেজ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ এর পক্ষে থেকে গতকালের ঘটনার বিবৃতি

প্রেস রিলিজ

দনিয়া কলেজ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ এর পক্ষে থেকে গতকালের ঘটনার বিবৃতিঃ

গতকাল সকাল সাড়ে আটটা থেকে আমরা শান্তিপূর্ণ ভাবে মানববন্ধন করছিলাম এবং সেই সাথে প্রতিটি গাড়ির লাইসেন্স চেক করছিলাম। সেই মুহূর্তে একটি মিনি ট্রাকের লাইসেন্স চেক করার জন্যে থামানোর চেষ্টা করা হলে সেই ট্রাক ড্রাইভার গাড়ি না থামিয়ে গাড়ি চালানো অব্যাহত রাখে। এর ফলে আমাদের একজন সহপাঠী ট্রাকের ধাক্কায় রাস্তায় ছিটকে পড়ে এবং আরেকজন চাকার নিচে পিষ্ট হয়।
এরপর আমরা অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করি।
শান্তিপূর্ণ ভাবে পালন করতে থাকি। এসময় প্রতিটি ইমার্জেন্সি গাড়ি যেমন এম্বুলেন্স, রিক্সা, ভ্যান, বাইক, সিএনজি, হজযাত্রী বহনকারী পরিবহন ছেড়ে দেওয়া হয়। শুধুমাত্র গণপরিবহন বন্ধ রাখি। ইতোমধ্যে আমরা যখন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছিলাম তখন আনুমানিক বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে বহিরাগত কিছু লোক আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মধ্যে হুট করে ঢুকে গাড়ি ভাংচুর শুরু করে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে পুলিশি সহায়তায় বহিরাগতদের সরানোর চেষ্টা করি। সেই মুহূর্তে তারা আমাদের শিক্ষার্থীদের উপর আক্রমণ করে এবং এরফলে অনেক ছাত্র আহত হয়। কিছুক্ষণ পর আমরা আবার সংগঠিত হয়ে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করতে গেলে সেই মুহূর্তে পুনরায় বহিরাগতরা আমাদের ওপর হামলা করে। সেই মুহূর্তে পুলিশ আমাদের ওপর লাঠিচার্জ শুরু করে৷ এরফলে আমাদের প্রায় ৩০ জন ছাত্র আহত হয়। এরপর থেকে আমাদেরকে রাস্তায় উঠতে দেওয়া হচ্ছিল না এবং আমাদের কলেজ ক্যাম্পাসেও প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

আমাদের দাবিসমূহ ——

১- গতকাল সকালে মিনিট্রাকের ড্রাইভারের পশুতুল্য বেপরোয়া আচরণে যে দু’জন ছাত্র আহত হয়েছে তাদের বর্তমান অবস্থান নিশ্চিত করতে হবে। তারসাথে দু’জনসহ আহত সকল ছাত্রের চিকিৎসার দায়িত্ব রাষ্ট্রকে নিতে হবে। চালককেও খুঁজে বের করতে হবে।
২- পলাতক মিনি ট্রাক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করতে হবে। সেই সাথে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।
৩- আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বহিরাগত যারা হামলা করেছে তাদের পরিচয় জানতে চাই এবং আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।
৪- ছাত্রদের উপর পুলিশি হামলার সুষ্ঠ বিচার চাই।
৫- সেই সাথে পূর্বের সকল দাবি অবিলম্বে পূর্ণ করতে হবে।

Facebook Comments
Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *